এএসপি পরিচয়ে বিয়ে, অতঃপর ধরা ছাত্রলীগ নেতা

সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) পরিচয় দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে এক নারীকে বিয়ে ও অর্থ আত্মসাৎ করায় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আকিবুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ফেসবুকে সম্পর্ক গড়ে বিয়ের নাটক সাজিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে সোমবার (৬ জানুয়ারি) নগরীর বাকলিয়া থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ভুয়া নাম পরিচয় ব্যবহার করে এ ছাত্রলীগ নেতা ২৩ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে ও অভিযোগ করা হয়।

বাকলিয়া থানার ওসি নেজাম উদ্দিন বলেন, এএসপি পরিচয়ে ভুয়া ফেসবুক আইডি ব্যবহার করে এক নারীর সঙ্গে প্রতারণা ও টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে সোমবার সকালে আকিবের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। অভিযোগ পেয়েই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার হাইলধর ইউনিয়নের খাসখামা গ্রামের নুরুল আবছারের ছেলে আকিব। অভিযোগকারী নারীর বাড়িও আনোয়ারা উপজেলায়। আকিব চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বলে নিশ্চিত করেছেন একই কমিটির সভাপতি এস এম বোরহান উদ্দিন।

নারীটি অভিযোগ করে বলেন, ২০১৯ সালের ৩ জুলাই স্বামীর সঙ্গে তার বিচ্ছেদ হয়। এরপর দুই মেয়ে নিয়ে তিনি আলাদা থাকতে শুরু করেন। এরই সুযোগ নিয়ে তাকে তাহসান খান পিজন নামে ফেসবুক আইডি থেকে বন্ধুত্বের আহ্বান জানানো হয়। সে নিজেকে এএসপি পরিচয় দিয়ে কথা বলতে থাকে। পরিচয়ের একপর্যায়ে তাহসান বিয়ের প্রস্তাব দেয় এবং তিনি রাজি হন। ওই বছরের ৭ আগস্ট তারা বিয়ে করেন। নিকাহনামায় তার নাম ‘তাহসান খান আকিব’ এবং বাবার নাম মো. আশরাফ খান, মাতা- মোছা. আসমা খানম উল্লেখ করা হয়। ঠিকানা লেখা হয়- নগরীর কোতোয়ালি থানার জামালখানে খান ম্যানশনে।

বিয়ের পর তারা একসঙ্গে স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে বিভিন্ন হোটেলে রাতযাপন করেন এবং শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন। পরে বাকলিয়ার ডিটি রোডে ওই নারীর ভাড়া নেয়া বাসায়ও তারা একইভাবে রাতযাপন করেন। কিন্তু নিজের বাসায় তুলে নিতে বললে তাহসান নানা টালবাহানা শুরু করে। এর মধ্যে সে বিভিন্ন সময় নারীর কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়।

গত ২৫ ডিসেম্বর আকিব নারীর বাসায় গিয়ে মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে তাকে হুমকি দেয় বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *