শেষের_পঙক্তি লেখনীতেঃ নুরুন্নাহার_তিথী পর্ব_৬

0
96

শেষের_পঙক্তি
লেখনীতেঃ নুরুন্নাহার_তিথী
পর্ব_৬
তূর নীরার হাত ধরে বললো,
–ডাক্তার ইফতি কিন্তু তার অতীতের ভালোবাসার মানুষটার নামের মেয়ে আরো অনেক দেখেছে। প্রথম প্রথম নাম শুনে থমকে গেলেও নামের অধিকারিণী তার হৃদয় কাড়ে নি। ১০ বছর তো কম সময় নয়। সে অনেক কম বয়সি সুন্দর নীরা নামের মেয়ে দেখেছে কিন্তু কাউকে ওই নামটা ছাড়া আর ভালো লাগাতে পারে নি নিজের কাছে। কাউকে দেখে তার মনে হয় নি জীবনে কাউকে আনা উচিত। কিন্তু তোকে দেখে মনে হয়েছে তার। আর সে তোকে কেনো বিয়ে করতে চায় তা তার কাছে সঙ্গা এমন ছিল যে,
“তার কস্ট গুলো আমাকে খুব গভীর ভাবে ছুঁয়েছিল। যখন তার কান্নারত ও ক্লান্ত মুখ নিয়ে হসপিটালের করিডরে ঢলে পরছিল তখন তাকে আগলানো আমিটা যেনো ভিতর থেকে বলছিল, সারাজীবন আগলাতে হবে একে!”

নীরা বাকরুদ্ধ হয়ে তাকিয়ে আছে। মাস চারেক আগে যখন নীরা ওর মাকে নিয়ে হসপিটালে গিয়েছিল আর ডাক্তার ওর মায়ের অনেকগুলা টেস্ট করতে দেয়, সেই ডাক্তার টা ছিল ইফতি। নীরার মায়ের বলা সমস্যা অনুসারে চেকআপ করতে দিলে। নীরা সব চেকআপ করায় আর তখন ইফতি নীরার নাম জানতে পারেন। পরেরদিন নীরা ভার্সিটি থেকে ফেরার পথে রিপোর্ট নিয়ে আবার ডাক্তার ইফতির কাছে গিয়েছিল। ডাক্তার ইফতির তখন বিকেলের কেবিনে রোগী দেখার প্রায় শেষ সময় ছিল। নীরার পর আরেকটা পেশেন্টের পর রাউন্ডের সময় ছিল তার। নীরার মায়ের রিপোর্টে এসেছিল, হাই LDL, হৃৎপিন্ডে কপাটিকাতে চর্বি জমেছে মানে ব্লকের কাছাকাছি আর ফ্যাটি লিভার।
ডাক্তার ইফতি তখন নীরাকে একন লিভার স্পেশালিষ্ট সাজেস্ট করার পর হৃৎপিন্ডের জন্য প্রয়োজনীয় মেডিসিন ও ডায়েট চার্ট দেয়। নীরাকে তার মায়ের অসুস্থতার কথা বলার পর ডাক্তার ইফতি খেয়াল করেছিল যে নীরার শরীর কাঁপছে আর চোখ মুখের অবস্থাও ভালো না। কেবিন থেকে বের হয়ে নীরা করিডোরের জানালার কাছে গিয়ে দাঁড়িয়ে কাঁদছিল যাতে অন্য রোগীর প্রবলেম না হয়। বাবা-মায়ের অসুস্থতা সন্তানের জন্য কতোটা কস্টের তা বলে বোঝানো যাবে না। ইফতির রোগী দেখা শেষ হবার পর করিডোরের জানালার দিকে নজর যাওয়ার পর নীরাকে দেখেছিল কাঁদতে। ডাক্তার ইফতি সেখানে এগিয়ে যাওয়া ধরতেই নীরা সেন্সলেস হয়ে ঢলে পরতে নিয়েছিল। সারাদিন ভার্সিটিতে থেকে না খাওয়া ছিল আর টেনশনে প্রেশার ফল করেছিল।

তূরের ধা*ক্কাতে বাস্তবে ফেরে নীরা তারপর সেখান থেকে উঠে চলে যায়। তূর নীরার যাওয়ার দিকে তাকিয়ে ক্লান্তির নিঃশ্বাস ফেলে গোসল করতে চলে যায়। তারপর নামাজ ও খাওয়ার পর এলার্ম দিয়ে ঘুম দেয়।

________
রাত ১০ টা। সবাই গাবতলিতে বাসের সামনে দাঁড়িয়ে আছে। তূর ঘুমে ঢলে পরছে। সন্ধ্যার নামাজের পর সে আরো এক ঘন্টা ঘুমিয়ে ৮ টার সময় উঠে রেডি হয়ে রওনা হয়েছে। এখন বাসে বসা নিয়ে বিড়ম্বনা চলছে। ৭টা ডাবল সিট নিয়েছে। লিরা ও ফাইজা, রিজভী ও তাইজুল, রাফি ও অর্ক, তাওহীদ ও আসফি, নাদিয়া ও তার হাসবেন্ড শাফকাত, এবার রণক বলে সে জারিনের সাথে বসবে। আর তূর ঘুমে ঢলে পরছে বলে তূর জারিনের সাথে বসবে। জারিন রণককে বুঝিয়ে মিহালের সাথে বসায়। জারিন ও তূর একসাথে।

যাত্রা বিরতিতেও তূর ঘুমাচ্ছে। জারিন তূরের পাশে বসেছিল। তূর জারিনের কাঁধে মাথা রেখে ঘুমিয়েছে এতক্ষণ। এখন জারিনের ঘুম পাচ্ছে বলে জারিন মিহালকে তূরের পাশে বসতে বলে সে রণকের পাশে বসে। মিহাল আর রণক এতোক্ষণ ঘুমিয়েছে এখন ওরা ঘুমাবে না। মিহাল গিয়ে তূরের পাশে বসে। জারিনরা সবাই জানে তূরকে মিহাল ভালোবাসে কিন্তু অনিশ্চয়তার মধ্যে সে তূরকে জানাতে নারাজ। তূর কিছুক্ষণ জানালার সাথে মা’থা ঠেকায়, কতক্ষণ সিটের সাথে এরপর মিহালের কাঁধে। জার্নির ধকল সে ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে পুষাচ্ছে।

সকাল ৮ টায় ওরা সিলেট মেইন টাউনে পৌঁছায়। মিহাল তূরের ঘুম ভেঙে যাওয়ার আগেই জারিনকে আবার তূরের পাশে বসিয়ে দেয়। ওরা সবাই সেখানে ২ ঘন্টার জন্য হোটেলের দুইটা ডাবল বেডের রুম ভাড়া করে ফ্রেশ হয় ও নাস্তা করে। তারপর হযরত শাহজালাল ও শাহপরানের মাজার দর্শনে বেরিয়ে পরে। যেহেতু দুই দিনের ঘোরাঘুরিতে এসেছে তাই প্রথম দিনই ঘোরাঘুরি শুরু করেছে। দুইটা মাজার দর্শন করতে করতে দুপুর হয়ে যাচ্ছে। মাজার এরিয়াতে দুপুরের খাবার খেয়ে ওরা আবারও বাস স্ট্যান্ডে আসে। বাস স্ট্যান্ড থেকে লাক্কাতুরা চা-বাগানের উদ্দেশ্যে রওনা হয়।

লাক্কাতুরা চা বাগানে এসে তো মেয়েদের ছবি তোলার ধুম পরে গেছে। চা বাগানের পাশ দিয়ে ও ভিতর দিয়ে মাটির রাস্তা এতো সুন্দর আর পুরো চা বাগানটা এতোটা মনোমুগ্ধকর যে বারবার এই সবুজের সমারোহে হারাতে মন চায়। পাহাড়ের ঢালের মতো চা বাগান। তার মাঝে মাঝে কিছু বৃক্ষরাজি তাদের উপস্থিতি জানান দিচ্ছে। ওরা সবাই নিজের মনের আহ্লাদ মিটিয়ে পরিবেশ উপভোগ করছে। চা বাগানের পাতা সংগ্রহকারীদের সাথে সবাই দুই একটা পাতা তুলে হাতে নিয়ে ছবি তুলেছে অনেক। মিহাল কিছুটা দূর থেকে তূর দুই হাত দিয়ে “দুইটি পাতা একটি কুঁড়ি” যখন তুলছিল আর হাসছিল, তখন মিহাল ওর ছবি তুলে নেয়। আকস্মিক তোলা ছবিটা অসম্ভব সুন্দর উঠে। মিহাল ছবিটার দিকে তাকিয়ে আলতো হেসে সগোউক্তি করে,

“তার স্নিগ্ধ হাসিতে মুগ্ধ হোক আমার হৃদয়। এই ওষ্ঠকোনে হাসির রেশ যেন অম্লিন থাকে।”

ঘন্টা দুয়েক চা বাগানে ঘোরাঘুরি করে চা বাগানের আশেপাশের চায়ের দোকান থেকে ওরা সবাই ফ্রেশ চা-পাতি দিয়ে বানানো চা পান করে শ্রিমংগলে যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা করে। শ্রিমংগলে একটা কাঠের বাংলা টাইপ হোটেলে ওরা বুকড করে রেখেছে। হোটেলটা চা বাগানের মধ্য আর অনেক গুলো বাংলো টাইপ কিছুটা দূরে দূরে। সেখানে রাতে থাকবে এরপর সকালে শ্রিমংগল ঘোরাঘুরি করবে। বাংলোটাতে চারটা রুম। দুইটা মেয়েদের দখলে আর দুইটা ছেলেদের। বিবাহিতদেরও এখানে সিঙ্গেলের মতো থাকতে হবে।

সন্ধ্যার পর ওরা বাংলোতে পৌঁছায়। বাংলোর সামনে বন ফা’য়ার করা আছে। বন ফা’য়ারের মধ্যে চিকেন গ্রিল করার ইচ্ছে ওদের তাই কেয়ারটেকারকে বলে সব বন্দোবস্ত করে আনে। বন ফা’য়ারের চারপাশে পাটি বিছিয়ে ওরা গান-আড্ডা দিচ্ছে আর খানিকটা দূরে আরেকটা বন ফা’য়ার করে তাতে কেয়ারটেকার কয়েকজন হেল্পিং হ্যান্ড আনিয়ে চিকেন গ্রিল করছে। এই বাংলোটা কাল দুপুর ১২ টার মধ্যেই ছেড়ে দিবে। বন ফা’য়ারের ঈষৎ হলুদাভাব আলোতে দুই জোড়া চোখ লুকুচুরি খেলছে আড়ালে। চোখে চোখ পড়লেই দৃষ্টি সরানোর যেনো এক অনবদ্য প্রতিযোগীতা! নাদিয়া ও শাফকাত, রণক ও জারিন তো পাশাপাশি বসেছে। অর্ক গিটার এনেছে সাথে। অর্ক গিটারের টুংটাং মিউজিক তুলছে। ওরা একটা খেলা খেলবে। যেখানে দুইটা বক্সে চিরকুট থাকবে। একটাতে ওদের প্রত্যেকের নামের চিরকুট আরেকটাতে কিছু করে দেখাতে হবে সেসব নাম। প্রথমে এলো শাফকাতের নাম আর তার পড়লো গান। শাফকাত কোনোমতে দুই লাইন গান গেলো জেমস ব্র্যান্ডের। তারপর একে একে সবার নাচ, আবৃতি, অভিনয়, জোকস, যেকোনো একটা লুকানো সত্য বলা এসব আসলো। তূরের পড়েছে আবৃতি।

তূর কবি সুফিয়া কামালের “তাহারেই পড়ে মনে” কবিতার কিছু লাইন আবৃতি করে।

“কুহেলি উত্তরী তলে মাঘের সন্ন্যাসী-
গিয়াছে চলিয়া ধীরে পুষ্পশূন্য দিগন্তের পথে
রিক্ত হস্তে! তাহারেই পড়ে মনে ভুলিতে পারি না কোনমতে। ”

কবিতাটার এই কয়েকটা পঙক্তিই যেনো পুরো কবিতার ভাবার্থ নির্দেশ করে।

মিহালের বেলায় গান পড়াতে মিহাল গায়,
“আমি পারি নি তোমাকে, আপন করে রাখতে।
আমি পারি নি তোমাকে, আবার আমার করে রাখতে।
তুমি বুঝোনি, আমি বলি নি,
তুমি স্বপ্নতে কেন আসোনি?
আমার অভিমান তোমাকে নিয়ে সব গেয়েছি।”

তূর গানটা মিহালের কন্ঠে শুনে মনে মনে তাচ্ছিল্য হাসে। যে গাইছে তার পুরো বিপরীত এই গানটা তূরের কাছে। মিহাল গানটার এক প্যারা গেয়ে আর গায় না। মিহালের মনে চলতে থাকে,
“তোমাকে সেদিন রিজেক্ট করারও কারণ ছিল তূর। ইনায়া তানজিনাকে সব বলেছে যানো! তানজিনাকে নিজের জীবন থেকে না সরিয়ে তোমাকে আমি আমার জীবনে আনতে পারবো না। আমার মা তখন তোমাকে সহ্য করতে পারবে না। তানজিনার জন্য তো আম্মু আমাকে কম মানসিক যন্ত্রনা দেয় না! তানজিনা নিজ থেকেই আমার জীবন থেকে সরে যাবে সেটার বন্দোবস্ত করতে হবে।”

চলবে ইন শা আল্লাহ,
ভুল ত্রুটি ক্ষমা করবেন ও কার্টেসি ছাড়া কপি নিষিদ্ধ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here